বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০২:১০ পূর্বাহ্ন


মো. নুরুল আলম:

মানুষকে আলোর পথে পরিচালনায় বইয়ের কোন বিকল্প নাই। ঘুমন্ত বিবেককে শক্তিশালী গ্রন্থই জাগ্রত করতে পারে। অন্ধকারাচ্ছন্ন বিপদগ্রস্ত মানুষকে ভালো বইয়েই সত্য পথ ও আলোর সন্ধান দেন। হিতাহিত জ্ঞান সম্পন্ন মানুষ তৈরিতে বইয়ের ভূমিকা অপরিসীম। আলোকিত লেখক সমাজ বইয়ের মাধ্যমে মানুষকে আলোর পথে ফিরিয়ে আনতে সম হন। মানুষকে মুক্ত চিন্তার অধিকারী করতে ভাল বইয়ের ভূমিকা রয়েছে।

ইতিহাসবিদ গবেষক সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীন দুই যুগের অধিক সময় ধরে ইতিহাস নিয়ে বইপত্র রচনা করেই চলেছে। বইয়ের মাধ্যমে মানুষকে পরিশুদ্ধ করতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। ক্ষুদ্রক্ষুদ্র পুস্তক প্রকাশের মাধ্যমে ঐতিহাসিক ভূমিকায় তিনি একদিন কালজয়ী হবেন।

বাংলাদেশ-ভারত-নেপাল ইতিহাস মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীন প্রণীত ও সম্পাদিত ৩টি গ্রন্থ যথাক্রমে “শানে মোস্তফা (স.)”, “অথৈ”, ও “কিরাত বাংলা” শিরোনামে গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন।

২৪ নভেম্বর শনিবার সকালে নগরীতে লেখকের বাসভবনে গ্রন্থগুলোর প্রকাশনা অনুষ্ঠান বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক, পরিবেশবিদ ও সাংবাদিক এ কে এম আবু ইউসুফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের প্রাক্তন সভাপতি মাওলানা রেজাউল করিম তালুকদার। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডায়মন্ড সিমেন্ট লিমিটেডের ডিজিএম মোহাম্মদ আবদুর রহিম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন কক্সবাজার ইতিহাস পরিষদের সভাপতি অধ্য মুহাম্মদ ইউনুচ কুতুবী,শাহ আমানত ইনষ্টিটিউটের শিক্ষক মাওলানা মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম।

আরো উপস্থিত ছিলেন, মোহাম্মদ সাদ, আবদুল্লাহ আল মামুন, শামসুদ্দিন রাজু, শরফুদ্দিন সাজিদ, সাফায়েত উদ্দিন ও গ্রন্থের লেখক সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীন।

পোস্টটি শেয়ার করুন

আরও পড়ুন